রূপশ্রী – বাংলার প্রকল্প – বাংলার সন্মান

পশ্চিমবঙ্গের ২০১৮-১৯ সালের বাজেটে সেই সময়ের ফিনান্স মিনিস্টার এই প্রকল্পের ঘোষনা করেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে এককালীন ২৫,০০০ টাকা দেওয়া হবে তাদের কন্যা সন্তানের বিবাহের জন্য। এই প্রকল্পের মুল লক্ষ হল সেই সমস্ত পরিবারের পাশে থাকা যারা আর্থিকভাবে সচ্ছল নয় এবং সেই অবস্থায় তাদের মেয়ের বিয়ে দেওয়ার জন্য অনেক সময় বাইরে থেকে চড়া সুদে লোন নিতে হয়, যাতে সেই লোনের কিছুটা দায়ভার রাজ্যসরকার বহন করে তাদের তাদের সাহায্য করে। এই প্রকল্পের রূপরেখার পর ১-ই এপ্রিল – ২০১৮ থেকে চালু করা হয়েছে এবং যাদের বিয়ে ২০১৮-এপ্রিল এর পরে হবে তাদের সকলের জন্যই যোগ্য। এই প্রকল্প গোটা রাজ্য তথা সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ জুড়েই প্রোজয্য।  এই প্রকল্প তখনই প্রযোজ্য হবে যখন ম্যারেজ অ্যাক্ট অনুযায়ী পাত্র ও পাত্রী প্রাপ্তবয়স্ক হবে অন্যথা এই প্রকল্পের সেই বিয়ের জন্য প্রযোজ্য নয়।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে টাকা পেতে হলে আপনাকে যে যে শর্ত গুলি মানতে হবেঃ-

বিবাহযোগ্য মহিলারাই এইপ্রকল্পের আবেদন করতে পারবে

১. আবেদনকারী-র বয়স অবশ্যই ১৮ বছরের বেশী হতে হবে।

২. আবেদনকারী কে অবশ্যই অবিবাহিত হতে হবে বা বলা যেতে পারে তার প্রথমবিয়ে হতে হবে।

৩. তাকে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হতে হবে অথবা তাকে বিগত ৫ বছরের পরানো বাসিন্দা হতে হবে এই রাজ্যের অথবা তার বাবা-মা কে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের চিরস্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

৪. পারিবারীক বার্ষিক আয় অবশ্যই ১,৫০,০০০ টাকার মধ্যে বা তার বেশী হলে হবে না।

৫. বিবাহযোগ্যা কন্যার পাত্র অবশ্যই ২১ বছর হতে হবে।

৬. পাত্রীর অবশ্যই নিজেস্ব ব্যাঙ্কের বই থাকতে হবে। এবং সেই ব্যাঙ্কের অবশ্যই IFSC ও MICR কোড থাকতে হবে।

আবেদন করার ফর্ম কোথায় পাবেন বা কিভাবে যোগাযোগ করবেনঃ-

বিবাহযোগ্য মহিলারাই এই প্রকল্পের আবেদন করতে পারবে, আবেদন করার জন্য কোন রকমের মুল্য দিতে হবে না। 

১. আপনার BDO office থেকে এই ফর্ম সংগ্রহ করতে হবে আপনি যদি রুরাল এরিয়ায় থাকেন আর নাহলে আপনাকে Sub-Divitional অফিস থেকে কালেক্ট করতে হবে। 

২. আপনি যদি মিনিউসিপাল এরিয়াতে থাকেন তবে আপনার লোকাল Municipal Commissioner  এর অফিস থেকে কালেক্ট করতে হবে।

যে যে ডকুমেন্ট গুলি সাবমিট করতে হবে ফর্মের সাথেঃ

১. বয়সের প্রমানপত্রঃ নিজ সাক্ষর করা জন্ম সার্টিফিকেট/ আধার কার্ড/ ভোটার কার্ড/ প্যান কার্ড/ মাধ্যমিক অ্যাডমিট কার্ড/ সরকারী রেজিসর্টাড স্কুলের সার্টিফিকেট।

২. বিয়ে হয়নি এই রকম আবেদন নিজ সাক্ষর করা।

৩. পারিবারিক বার্ষিক আয় এর খতিয়ান।

৪. স্থায়ী ঠিকানার প্রমান পত্র।

৫. আবেদনকারী তার নিজের ব্যাংক এর পাশবই।

৬. বিবাহ হচ্ছে তার কাগজ যাতে প্রমানিত হয় বিয়ে সম্পন্ন হচ্ছে।

৭. পাত্রীর সাথে সাথে পাত্রের বয়সের প্রমান পত্র।

৮. কালার ছবি পাত্র ও পাত্রীর দুজনের। 

এবং মনে রাখা প্রয়োজন বিয়ের অন্তত ৩০ দিনের আগে ও বিয়ের ৬০ এর পরে এই আবেদন করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *