You are currently viewing অতিত আর বর্তমানের ব্যাবধানে আটকে থেকো না | Don’t be a emotional fool between Past & Present | Personality Development Theory in Bengali
personality-development-theory-in-bengali-clear-your-mind

অতিত আর বর্তমানের ব্যাবধানে আটকে থেকো না | Don’t be a emotional fool between Past & Present | Personality Development Theory in Bengali

প্রত্যেক দিন আমরা আমাদের অতীত আর বর্তমানের মধ্যে পার্থক্য দিয়ে অনেক কিছুই বিচার করি। বন্ধুত্ব, প্রেমিক-প্রেমিকা, জায়গা, কাজ, কাজের ধরন নানান কিছু। এমনও হয় নতুন কিছু জিনিষ দেখলেও আমরা Compare করি। আসলে এই Compare টা নিজেদের না পারাটাই অনেক সময় প্রকাশ্যে আসে। তাই নতুন কে সব সময় আপন করে নিতে হয় বা নিতে জানতে হয়।

এই যেমন নিচের ছবিতে দেখুন, মেয়েটি কি সুন্দর Bullet Bike চালাচ্ছে।

এখন আমরা যদি এটা মেনে নিতে না পারি তালে আমরা আসলে এই সময়ের বিপরীতে হাটার চেষ্টা করছি। আর বিপরীতে হাটা শুধু বোকামই না সময়ও নষ্ট। তাই নতুনকে মেনে নিতে হবে।

শেয়ার করুন Whatsapp বন্ধুদের সাথে

উন্নত পদ্ধতি ও পরিবর্তনকে মেনে নিতে উদার ও নমনীয় হও

পরিবর্তনই প্রকৃতির নিয়ম। যা কিছু পরিবর্তন-সাপেক্ষ তাই পৃথিবীর সংজ্ঞা। প্রতিটি ক্ষনে পরিবর্তন ঘটছে। একঘন্টা আগেও আমরা যা ছিলাম, এখন তা নেই।

সুতরাং পরিবর্তনকে বাধা দেবে না। পরিবর্তনের সুযােগ নিয়ে উন্নতি কর ও শেখাে। এটাই পরিবর্তনের দর্শন বা সারকথা। অন্যথায় পরিবর্তন না থাকলে আমরা স্থবির ও বুদ্ধিহীন হবাে। সুতরাং পরিবর্তনকে স্বাগত জানাও, বিষাদগ্রস্থ না হয়ে একে নিজের উন্নতির স্বার্থে কাজে লাগাও ।

ধরাে তুমি একস্থান থেকে অন্যত্র স্থানান্তরিত হয়ে জায়গার পরিবর্তন হলাে। নুতন জায়গা সম্বন্ধে নানারকম ভয়, অস্বস্তি বা নেতিবাচক চিন্তাভাবনা শুরু কোরাে না। ওসবই কাল্পনিক ধারনা। বাস্তব অবস্থা অন্যরকম। চাইলে প্রতিকূল অবস্থাতেও বাঁচার ও উন্নতি করার শিক্ষা পেতে পারাে। আবার অদম্য ইচ্ছাশক্তির জোরে সমস্ত প্রতিকূল অবস্থার বাধাবিপত্তি কাটিয়ে অনুকূল পরিবেশের বাতাবরণ রচনা অবশ্যই করতে পারাে।নুতন তত্ত্ব ও প্রস্তাবনাকে খােলা মনে স্বাগত জানাও। কতকগুলাে বদ্ধ ধারনা ও খামখেয়ালীর বশবর্তী হয়ে মনের দরজা বন্ধ করে রেখাে না। যে অবস্থায়ই থাকো না কেন, মনে রাখবে তােমার সামনে উন্নতির রাস্তা সবসময়ই খােলা আছে।

এজগতে কোনাে কিছুই বিনা পয়সায় পাওয়া যায় না।

প্রত্যেক বস্তু পেতে গেলে এ জগতে দাম দিতে হয়। ঈশ্বরের নিয়মে মূল্য নেই এমন বস্তু নেই। সেইসব বস্তু যেমন পত্রিক সম্পত্তি, জুয়া বা ঘুষের টাকা যা কিনা আপাতদৃষ্টিতে বিনা আয়াসে করায়ত্ত হচ্ছে, তার কুফল তুমি সরাসরি বুঝতে না পারলেও, কোনােও না কোনাে উপায়ে তা অপচয় হবেই। কখনও কোনাে সম্পত্তি বেদখল করবে না, অসদুপায়ে টাকা রােজগার করবেনা কেননা এ টাকা নষ্ট হবে। তােমার যােগ্যতার মাপকাঠিতে যা কিছু তােমার প্রাপ্য সেই সম্পদই শেষ পর্যন্ত তােমার থাকবে। সুতরাং লােভ সংবরণ কর।

keep-smiling-personality-development-theory-in-bengali

জগতে কোনাে কিছুই জরুরী বা অপরিহার্য নয়।

বিভিন্ন কাজকর্মে ব্যস্ত কিছু ব্যক্তি ধারাবাহিকভাবে সময়ের চাপ ও তাগিদে ভােগেন, সেই কাজ সম্পূর্ণ করার জন্যে । তারা ভাবেন সময়ে কাজ শেষ না হলে হয় মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পরবে নয়ত পৃথিবী অচল হয়ে যাবে । অত্যন্ত জরুরী বলে তারা নিজেদের মানসিকচাপ অধস্তনের মধ্যে সঞ্চারিত করেন। আর যত উদ্বেগ আর অস্থিরতাও তাদের ঘাড়ে চাপিয়ে দেন।

তাঁরা কিছুতেই বুঝতে চান না যে এ পৃথিবীতে কোনাে কিছুই জরুরী বা অপরিহার্য নয় । জগতে সবকিছু অপেক্ষা করতে পারে যে কোনাে সময় পর্যন্ত আর এ জগতের উপরে তার কোনােই ফলাফল বর্তাবে । বস্তুতঃ আমরাই পৃথিবীর উপর নির্ভরশীল, পৃথিবী নয় । জগত স্বয়ংনির্ভর এবং একটি অতি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন শক্তি দ্বারা চালিত হয়। আমাদের বাদ দিয়ে এ পৃথিবীর কি হবে এ নিয়ে রাতের ঘুম নষ্ট করার কোনাে কারণ নেই। আমরা এখানে এসেছি পৃথিবীর সম্পদ ভােগ করার জন্য ও কিছু শিক্ষা অর্জন করার অভিপ্রায়ে, কিন্তু উল্টোটা নয়।

সুতরাং নিজের জ্ঞানকে সম্বল করে ও নিজের আধ্যাত্বিক উন্নতির জন্যে সর্বকাজ সম্পন্ন কর ও কাজ শেষ করার তাগিদে আতঙ্কে ও অস্থিরতায় ভুগবে না । সব আটঘাট বেঁধে নামলেও নিশ্চয়তা নেই যে তুমি যা পেতে চাইছ, তাই তুমি করতে পারবে। এর কারণ ব্যপক অনিশ্চয়তা পৃথিবীর একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য। পৃথিবীর নয়, আমাদের প্রয়ােজন নিজেদের পরিবর্তন ও পরিশােধন। আপনি বদলালে জগত বদলাবে, যদিও এ আমাদের উদ্দেশ্য নয়।

সুতরাং আন্তরিক প্রচেষ্টা জারী রাখ, তারপর সব ফলাফল ঈশ্বরে সমর্পণ করাে।

শেয়ার করুন Whatsapp বন্ধুদের সাথে

ফলের প্রত্যাশা না করে, কাজকে ভালােবাসাে।

কাজকে ভালােবাসতে শেখাে। যখন কাজের ফলাফল ঈশ্বরই নির্ধারণ করেন, তুমিও তখন তার ফল ভােগ করার আশা কোরাে না। কঠোর পরিশ্রম স্বত্ত্বেও কোনাে ফল পাওনি বলে কেন হতাশ হচ্ছ যখন এর ফলাফল ঈশ্বরই নির্ধারণ করেন। তিনি তােমার পরিশ্রমের ফল দেবেন কি দেবেন না। সেটা অনেক বিষয়ের উপর নির্ভর করে। তােমার কর্তব্য সম্পন্ন করলেই তােমার ভূমিকা শেষ। এরপরে কাজের পরবতী পৰ্য্যায় শুরু কর। ঈশ্বরের লীলায় তুমি অন্তরায় হবে কেন ?

এই ধরনেই লেখা অবশ্যই আপনি আমনার বন্ধুদের মধ্যে শেয়ার করবেন ও আরো লেখা পড়তে আমাদের ব্লগ ফলো করবেন।

অতিত আর বর্তমানের ব্যাবধানে আটকে থেকো না | Don’t be a emotional fool between Past & Present | Personality Development Theory in Bengali

Image and Information help from wikipedia | Pixabay

শেয়ার করুন Whatsapp বন্ধুদের সাথে

Leave a Reply